জুলাই ২৭, ২০২১

দৈনিক আজকের বাংলাদেশ

সত্য প্রকাশে আপোষহীণ…

আজ মানবিক ছাত্রনেতা অনাবিল নির্ঝরের শুভ জন্মদিনঃ জনস্বার্থে থাকবে নানা আয়োজন

এমডি অভিঃ-

আজ, নারায়ণগঞ্জ মহানগর ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও স্বনামধন্য সামাজিক সংগঠন ‘ভাষা সৈনিক নাগিনা জোহা সমাজ কল্যাণ পরিষদ’ এর ভাইস-চেয়ারম্যান মানবিক ছাত্রনেতা অনাবিল দাশ নির্ঝরের ২২তম শুভ জন্মবার্ষিকী।

প্রতিবছর এদিনে অনাবিল নির্ঝর ব্যক্তিগতভাবে আনন্দ-উল্লাসে অর্থ ব্যয় না করে বৃক্ষরোপণ ও অসহায় শিশু-কিশোরদের ভোজনের ব্যবস্থা সহ জনকল্যাণে নানারকমের উদ্যোগ গ্রহণ করে থাকেন। এবছরও তিনি এভাবেই জন্মদিন উদযাপন করবেন বলে জানা যায়। তবে অনাবিল নির্ঝর ছাড়াও তরুণ ও ছাত্র সমাজের অনেকেই নারায়ণগঞ্জ তথা বন্দরের বিভিন্ন এলাকায় এদিন অনাবিল নির্ঝরকে ভালবেসে বিভিন্ন জনকল্যাণমুখী আয়োজন করেন। তরুণ ও ছাত্র সমাজের মনে এভাবেই জায়গা করে নিয়েছেন ছাত্রলীগ নেতা অনাবিল দাশ নির্ঝর।

নারায়ণগঞ্জ- ৪ আসনের সাংসদ একেএম শামীম ওসমানের একমাত্র পুত্র তরুণ ও যুব সমাজের অহংকার আলহাজ্ব একেএম অয়ন ওসমানের প্রবল অনুগত ছাত্রনেতা অনাবিল দাশ নির্ঝর অনবরত তার মেধা, শ্রম ও জনসেবার মধ্য দিয়ে সাম্প্রতিক সময়ে নারায়ণগঞ্জ ব্যাপী বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছেন।

অনাবিল দাশ নির্ঝর নারায়ণগঞ্জ জেলার বন্দর থানাধীন দক্ষিণ লক্ষণখোলা এলাকার সন্তান। তিনি বর্তমানে রাজধানীর স্বনামধন্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠান কেমব্রিয়ান ইন্টারন্যাশনাল কলেজ অব এভিয়েশনে এরোন্যাটিকেল ইঞ্জিনিয়ারিং (বিমান প্রকৌশল) বিষয় নিয়ে পড়ছেন।

অনাবিল দাশ নির্ঝরের পিতা বাবু শ্যামল কুমার দাশ একজন খ্যাতিমান সাংবাদিক ও নারায়ণগঞ্জ এডিটরস ক্লাবের সভাপতি এবং একজন আওয়ামীলীগ নেতা।

তার মা শিখা রানী পাল দক্ষিণ লক্ষণখোলা বালিকা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সাবেক সহকারী শিক্ষিকা।

অনাবিল নির্ঝরের বাবা বাবু শ্যামল কুমার দাশ ওসমান পরিবারের অনুগত বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের একজন নিবেদিত প্রাণ। তিনি দলের জন্য সবসময় সৃজনশীল মেধা ও কলম শক্তি বিলিয়ে গেছেন। বিশেষ করে তিনি দলের দুঃসময়ে সাহসিকতার সাথে কলম শক্তি দিয়ে দলের উপর জামায়াত-বিএনপির নির্যাতন ও অত্যাচারের চিত্র দেশীয় ও আন্তর্জাতিক মহলে তুলে ধরেছিলেন। যার জন্য তাকে পারিবারিক ও মানসিকভাবে অনেক নির্যাতনের শিকার হতে হয়েছিলো। কিন্তু এতকিছুর পরও দলের সুসময়ে তিনি কিছু পাওয়ার আশা করেননি।

নির্ঝরের বড় ভাই, ভাষা সৈনিক নাগিনা জোহা সমাজ কল্যাণ পরিষদের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান প্রবাসী প্রকৌশলী স্বপ্নীল দাশ নিলয়ও ওসমান পরিবারের নেতৃত্বে দীর্ঘদিন যাবৎ রাজনীতি করে আসছেন। বহু শ্রম ও মেধা বিলিয়ে আসলেও এখনো দল থেকে তাকে কোনো পদ বা সুবিধা দেয়া হয়নি। তবে ওসমান পরিবারের প্রবল অনুগত এই ত্যাগী তরুণ নেতা বর্তমানে প্রবাসে থাকার পরও এখনো সেখানে থেকেই নারায়ণগঞ্জের রাজনীতিতে ওসমান পরিবারের পক্ষ থেকে নিঃস্বার্থভাবে নানারকম ভূমিকা রেখে চলেছেন।

অনাবিল দাশ নির্ঝর বেশ কয়েকবছর আগে অয়ন ওসমানের নির্দেশনায় রাজনীতি করার স্বপ্ন নিয়ে নারায়ণগঞ্জ মহানগর ছাত্রলীগের সভাপতি ও সরকারি তোলারাম কলেজের ভিপি হাবিবুর রহমান রিয়াদের হাত ধরে ছাত্রলীগের রাজনীতিতে আসেন। নির্ঝর শুরু থেকেই ছাত্রলীগের সকল কার্যক্রম আদর্শ ও নিষ্ঠার সাথে পালনের পাশাপাশি দেশ, সমাজ ও জনগনের কল্যাণে ধারাবাহিকভাবে অনবরত কাজ করে যাচ্ছেন। বর্তমান এই স্বার্থপরতার যুগে তিনি প্রতিনিয়ত সুবিধাবঞ্চিত ও অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে সর্বমহলে সুনাম ও প্রশংসা কুড়িয়ে নিয়েছেন। জানা যায়, নারায়ণগঞ্জ মহানগর ছাত্রলীগের সভাপতি হাবিবুর রহমান রিয়াদ তার স্নেহধন্য এই শিষ্য অনাবিল নির্ঝরকে বেশ যত্ন সহকারে আদর্শিক সুশিক্ষা দিয়ে রাজনীতিতে গড়ে তুলছেন।

অয়ন ওসমানের দিক নির্দেশনায় অনাবিল নির্ঝর তরুণ সমাজকে বিভিন্ন সামাজিক অপরাধ থেকে দূরে রাখতে প্রতিনিয়ত তাদেরকে ক্রীড়া ও সংস্কৃতি চর্চায় উৎসাহী করে তোলার পাশাপাশি তাদেরকে সমাজ ও জনকল্যাণে কাজ করার অনুপ্রেরণা যুগিয়ে যান।

জনকল্যাণে কাজ করা ছাড়াও অনাবিল নির্ঝর সবসময় দল ও দেশের বিষয়ে বিন্দুমাত্র আপোষ না করে যেকোনো অন্যায়ের বিরুদ্ধে সর্বদা প্রতিবাদী ভূমিকা পালন করেন। তার প্রতিবাদী চেতনার বড় প্রমাণ মিলে বেশ কিছুদিন পূর্বে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের মেয়র সেলিনা হায়াৎ আইভি বন্দরে এক সরকারি উন্নয়ন প্রকল্পের উদ্বোধন অনুষ্ঠানের ব্যানারে প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার ছবি ছাড়াই শুধু নিজের বিশাল ছবি ব্যবহার করে দলের প্রতি বিতর্কিত ভূমিকা রাখলে অনাবিল নির্ঝর এই প্রভাবশালী মেয়রের বিরুদ্ধেও প্রতিবাদ করতে পিছুপা হননি। যার জন্য তিনি শহরব্যাপী আলোচনায় এসেছিলেন। তাছাড়া ২০১৯ সালের ২১শে ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ও শহীদ দিবসে সরকারি ছুটির দিনে বন্দরের দক্ষিণ লক্ষণখোলায় গড়ে উঠা একটি প্রভাবশালী বিদেশী ব্যাটারি কোম্পানি প্রশাসনের অসাধু সদস্যদের সহযোগিতা নিয়ে বাঙ্গালী শ্রমিকদের ছুটি না দিয়ে অন্যায়ভাবে ভয়-ভীতি দেখিয়ে জোর পূর্বক কাজ করালে ছাত্রলীগ নেতা অনাবিল নির্ঝর স্থানীয় তরুণ সমাজ ও সাংবাদিক মহলকে সাথে নিয়ে সেখানে কঠর প্রতিবাদ ও আন্দোলন করে প্রতিষ্ঠানকে ছুটি দিতে বাধ্য করেন। প্রতিষ্ঠানটি তাকে অনেক টাকা দিয়ে ম্যানেজ করতে চাইলেও তিনি তাতে সাড়া না দিয়ে অসহায় শ্রমিকদের পাশে থেকে তাদের অধিকার পাইয়ে দিয়েছেন। ফলে শ্রমিকরা অনাবিল নির্ঝরের এই প্রবল সাহসিকতা ও আপোষহীন ন্যায় দেখে প্রশংসায় পঞ্চমুখ হয়েছিলেন। যা জেলাব্যাপী আলোড়ন সৃষ্টি করেছিলো।

এদিকে অনাবিল নির্ঝরের নেতৃত্বে ওসমান পরিবারের বলয়ের একটি শক্তিশালী সাংগঠনিক অবস্থানও গড়ে উঠেছে। তার নেতৃত্বে শত-শত নেতাকর্মী ছাত্রলীগের রাজনীতি করছে। বর্তমানে নারায়ণগঞ্জের রাজনীতিতে হাতে গোনা কয়েকজন হাই-ওয়েট ছাত্রনেতার মধ্যে অনাবিল নির্ঝর অন্যতম হয়ে উঠেছেন।

অনাবিল নির্ঝরের অসংখ্য জনকল্যাণমুখী কাজের মধ্যে অন্যতম হচ্ছে প্রতিবছর পবিত্র ঈদ-উল-ফিতরে অসহায় ও সুবিধাবঞ্চিত মানুষকে নতুন পোষাক উপহার দেয়া, রমজান মাসে অসহায়দের খাদ্য সামগ্রী দেয়া, অসহায় অসুস্থ মানুষের চিকিৎসার জন্য আর্থিক সহযোগিতা করা, বিভিন্ন স্কুল মাদ্রাসার গরীব শিক্ষার্থীদের পাশে দাঁড়ানো, তাদের আর্থিক সহযোগিতা করা, আদর্শিক তরুণ সমাজ গড়ে তুলতে নানাধরণের সৃজনশীল উদ্যোগ গ্রহণ করা, প্রতিনিয়ত বৃক্ষরোপণ সহ পরিবেশ রক্ষায় বিভিন্ন কাজ করা, তরুণ সমাজে দেশপ্রেম জাগাতে সকল জাতীয় দিবস সহ বিভিন্ন ঐতিহাসিক গুরুত্বপূর্ণ দিনে তরুণ সমাজকে সাথে নিয়ে বিভিন্ন সামাজিক ও ঐতিহ্যবাহী অনুষ্ঠান আয়োজনের পাশাপাশি প্রতিবছর স্থানীয় শহীদ মিনার সহ বিভিন্ন ঐতিহাসিক স্থাপনা সংস্কার করা। এসমস্ত কাজ তিনি ধারাবাহিকভাবে সবসময় করে যাচ্ছেন। এছাড়াও যখনি সমাজ ও মানুষের যেকোনো প্রয়োজন দেখা দেয় অনাবিল নির্ঝরকে তার সাধ্যমতো এগিয়ে আসতে দেখা যায়। এমনকি তিনি নিজের শুভ জন্মদিনের আনন্দটুকুও অসহায়দের সাথে ভাগাভাগি করে নিতে বেশি পছন্দ করেন।

এভাবে বর্তমানের মিথ্যা ও অন্যায়ের চাদরে ঘেরা কলুষিত রাজনীতির ময়দানে নিজেকে একজন সত্যিকারের নির্লোভ, স্বচ্ছ ও ন্যায়পরায়ণ ছাত্রনেতা হিসেবে গড়ে তুলে সর্বদা জনকল্যাণ ও অভাবনীয় সমাজসেবার মাধ্যমে অনাবিল নির্ঝর সাধারণ ছাত্র জনতার কাছে নিজেকে একজন ছাত্রবীর খেতাবে সমাদৃত করে ফেলেছেন। ছাত্র জনতা তাকে এখন ছাত্রবীর বলতেই বেশি পছন্দ করে।

তাছাড়া গতবছর দেশে ভয়ানক করোনা ভাইরাস আগমনের শুরু থেকে এখন পর্যন্ত অনাবিল নির্ঝর বিভিন্ন এলাকার গুরুত্বপূর্ণ জায়গায় জীবাণুনাশক ছিটানো, রাস্তায়-রাস্তায় হাত ধোয়ার বেসিন বসানো, অসংখ্য মাস্ক ও স্যানিটাইজার বিতরণ, সুবিধাবঞ্চিত, অসহায় ও নিম্ন মধ্যবিত্ত মানুষকে খাদ্য সহায়তা এবং আর্থিক সহযোগিতা প্রদান সহ করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে ধারাবাহিকভাবে সমাজ ও জনগনের কল্যাণে নিজের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে নানারকম কাজ করে সকলের কাছে একজন করোনা যোদ্ধা হিসেবেও খ্যাতি পেয়েছেন।

অনাবিল নির্ঝর তার কর্মদক্ষতা, মেধা, শ্রম ও জনসেবার মাধ্যমে অন্যান্যদের তুলনায় খুব অল্প বয়সেই এই প্রবল জনপ্রিয়তা অর্জন করে নিয়েছেন। নারায়ণগঞ্জের ছাত্র রাজনীতিতে বর্তমানে তার অবস্থান অনেক গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছে।
ছাত্রলীগের হাজার-হাজার তৃণমূল নেতাকর্মীর আশা অনাবিল নির্ঝর আগামীতে ছাত্রলীগের বড় দায়িত্বে আসবেন। তাদের মতে, অনাবিল নির্ঝর জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শকে শুধু বক্তব্যে নয় বরং অন্তরেও ধারণ করেন যা তার কর্মের মধ্য দিয়ে প্রকাশ পায়। অনাবিল নির্ঝর সাংগঠনিকভাবে একজন অত্যান্ত মেধাবী, কর্মঠ ও নির্লোভ ছাত্রনেতা এবং তার পাশাপাশি ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে অনাবিল নির্ঝর সর্বদা অসংখ্য সমাজসেবা করার মাধ্যমে ছাত্রলীগের জন্য বিপুল সুনামও বয়ে আনেন। তিনি ছাত্রলীগের বড় দায়িত্বে আসলে ছাত্রলীগের ঐতিহ্য ও সুনাম আরও বৃদ্ধি পাবে এবং ছাত্রলীগের আগামীর ইতিহাস আরও গৌরবান্বিত হবে বলে মনে করেন বহু তৃণমূল নেতাকর্মী।

অনাবিল নির্ঝর ২০১৭ সালের ২৫ ফেব্রুয়ারী স্থানীয় ২৫ নং ওয়ার্ড ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি নির্বাচিত হোন এবং পরবর্তীতে ২০১৯ সালের ৩১ জুলাই নারায়ণগঞ্জ মহানগর ছাত্রলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণাকালে উক্ত কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক নিযুক্ত হওয়ার পর নিষ্ঠার সাথে এখনো দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন।

আজ ৬ জুলাই, এই মানবিক ছাত্রনেতার শুভ জন্মদিনে ‘দৈনিক আজকের বাংলাদেশ’ অনলাইন নিউজ পোর্টালের পক্ষ থেকে রইলো অসংখ্য শুভেচ্ছা ও নিরন্তর শুভ কামনা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Like us on Facebook