জানুয়ারি ১৯, ২০২২

দৈনিক আজকের বাংলাদেশ

সত্য প্রকাশে আপোষহীণ…

এলাকাবাসীর কাঙ্খিত সেতু নির্মাণ করে প্রশংসায় ভাসছেন পল্লী ডাক্তার এম এ খালেক

আজকের বাংলাদেশ রিপোর্টঃ-

নারায়ণগঞ্জের বন্দর উপজেলার মদনপুর ইউনিয়নের চাঁনপুর ৫নং ওয়ার্ডে গ্রামবাসী ও জনসাধারণের চলাচলের জন্য ব্যক্তিগত নিজ অর্থায়নে বাশ ও কাঠের সেতু নির্মাণ করে প্রশংসায় ভাসছেন পল্লী ডাক্তার এম এ খালেক । এই সেতু নির্মাণ হওয়ায় সাধারণ জনগন ৫নং ওয়ার্ডবাসী স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলছে।

স্থানীয় এলাকাবাসী সূত্রে জানাযায়, এই সেতু এতদিন না থাকায় অনেকদূর পায়ে হেঁটে মহাসড়ক পাড় হয়ে মদনপুর বাসস্ট্যান্ড দিয়ে গার্মেন্টস, হসপিটাল বিভিন্ন জায়গায় যেতে হতো, সেতুটি নির্মাণ হওয়ায় অল্প সময়ে যাতায়াত করতে পেড়ে তারা আনন্দিত ও খুশি।

পল্লি ডাঃ এম এ খালেক নামে সেতুটি নাম করণ করা হয়েছে। এই সেতু দিয়ে প্রায় এলাকাবাসী সহ বিভিন্ন এলাকার ৮হাজার মানুষ চলাচল করবে সকলের জন্য সেতু টি উন্মুক্ত এবং লাইটিং ব্যবস্থা সহ করা হয়েছে।

এলাকাবাসী আরও জানান পল্লী ডাক্তার এম এ খালেক একজন অত্যন্ত ভালো মনের মানুষ সে কোন স্বার্থ ছাড়াই আমাদের যেকোন বিপদে আপদে পাশে দাঁড়ান। সে জনপ্রতিনিধি না হয়েও আমাদের জন্য কাজ করেন।

এর আগেও মহামারী করোনাভাইরাসে বিভিন্ন ধাপে ত্রাণ সহযোগিতা সহ ও চাঁনপুর ৫নং ওয়ার্ডে গ্যাস সংযোগ না থাকায় ১মন করে জ্বালানি কাঠ তিনশত পরিবারের মাঝে বিতরণ করেন। এবং অসচ্ছল মানুষদের ফ্রি চিকিৎসা সেবা সহ আর্থিক সহযোগিতা প্রদান করেন।

পল্লী ডাক্তার এম এ খালেক জানান অনেক দিন ধরে এই সেতুর জন্য এলাকাবাসীর জনসাধারণ অনেকদূর ঘুরে ফ্যাক্টরিতে ও গার্মেন্টস এবং বাজারে যেতে হতো, সেতুটি নির্মাণ হওয়াতে অল্প সময়ে গার্মেন্টস ও মহাসড়কে উঠতে পারবে। বাঁশ কাঠ ও সেতুর নিচে সিমেন্টের খাম দিয়ে হেভি করে আমার ব্যক্তিগত নিজ অর্থায়নে প্রায় দেড় লক্ষ টাকা খরচ করে এলাকাবাসী ও জনসাধারণের জন্য এই সেতুটি নির্মাণ করেছি।

তার পাশাপাশি সেতুটিতে লাইটিং ব্যবস্থা করেছি। এর আগেও আমি আমার চাঁনপুর ৫নং ওয়ার্ডবাসীর জন্য মহামারী করোনা ভাইরাসে চার ধাপে ছয় শতাধিক পরিবারকে ত্রাণ সহযোগীতা, মৌসুমী ফল, ফ্রি চিকিৎসা সেবা, আর্থিক সহযোগিতা সহ জ্বালানি কাঠ বিতরণ করি।

আমি একটি কথা বলতে চাই মানুষের পাশে দাঁড়াতে হলে কোন জনপ্রতিনিধি হতে হয়না একটি মনের প্রয়োজন হয় আর ইচ্ছাশক্তি থাকতে হয়। আমি আমার চাঁনপুর বাসীর সকল বিপদে পাশে থাকতে চাই এবং এই ওয়ার্ডকে মডেল ওয়ার্ড হিসেবে গড়তে ওয়ার্ডবাসীর সহযোগীতা চাই।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Like us on Facebook