রবি. সেপ্টে ২০, ২০২০

দৈনিক আজকের বাংলাদেশ

সত্য প্রকাশে আপোষহীণ…

না’গঞ্জে বন্দরে ভুয়া পশু ডাক্তারের চিকিৎসায় গরুর মৃত্যু, অর্ধলাখ টাকায় রফদফা (ভিডিও সহ)

আজকের বাংলাদেশ রিপোর্ট :-

নারায়ণগঞ্জের বন্দর উপজেলায় হাসনাত নামে এক ভুয়া পশু ডাক্তারের ভুল চিকিৎসায় একটি গরুর মৃত্যু হয়েছে। এঘটনায় গরু মালিক মঞ্জু মিয়া ঐ ডাক্তারকে আটক করে বন্দর উপজেলা প্রাণি হাসপাতালের ভেটেরিনারি সার্জন ডাঃ ইমরান হোসেনকে খবর দিলে তার দু’ঘন্টার মধ্যস্থতায় ৫০ হাজার টাকার রফাদফার বিনিময়ে সমাধান করে দেওয়া হয়।

বৃহস্পতিবার ২৭ আগস্ট সন্ধ্যায় উপজেলার বন্দর ইউনিয়ন ৫নং ওয়ার্ডস্থ বেজেরগাঁওএলাকায় এ ঘটনাটি ঘটে। ভুয়া ডাক্তার হাসনাত মিয়া সোনারগাঁও উপজেলার হোসেনপুর এলাকায় বসবাস করে । পশু চিকিৎসা বিষয়ক কোন প্রাতিষ্ঠানিক প্রশিক্ষণ ছাড়াই তিনি পশু চিকিৎসার নামে সাধারণ জনগনের সাথে প্রতারণা করে আসছে বলে জানা গেছে।

গরুর মালিক মঞ্জু মিয়া জানান, তার ২ মাসের গাভিন গরুটির কয়েকদিন প্যাট ফাঁপা ছিল। এবিষয়ে ভুয়া পশু ডাক্তার হাসনাত মিয়া পরামর্শ চাইলে সে সকালে বাড়িতে এসে গরুর চিকিৎসা গেলে সন্ধ্যায় গরুটি মারা যায়। এতে করে ১ লাখ ৩০ হাজার টাকার ক্ষতি হয় তার ভুয়া চিকিৎসার জন্য।

গরুর মালিক মিয়া জানান, সকালে চিকিৎসা করার পরে যখন সন্ধ্যায় গরুটি মারা যায় তখন ভুয়া পশু ডাক্তার হাসনাতকে আবারও চিকিৎসার কথা বলে বাড়িতে নিয়ে আসি। পরবর্তী সময়ে আমিসহ আমার এলাকাবাসী তাকে আটক করে বন্দর উপজেলা প্রাণি হাসপাতালের ভেটেরিনারি সার্জন ডাঃ ইমরান হোসেনকে ফোন করলে সে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হন। এবং ভুয়া পশু ডাক্তার হাসনাতের বিষয় বিস্তারিত জেনে এক পর্যায়ে ক্ষতিপূরণ দেবার কথা বলে। প্রায় ২ ঘন্টা দরকষাকসিতে এক পর্যায়ে ৫০ হাজার টাকা ক্ষতিপূরন আদায় করে থাকেন।

এবিষয়ে জানতে চাইলে বন্দর উপজেলা প্রাণি হাসপাতালের ভেটেরিনারি সার্জন ডাঃ ইমরান হোসেনকে বলেন, ভুয়া পশু ডাক্তারের ভুল চিকিৎসা মঞ্জু মিয়ার গরুটি মারা যায় এবং ডাক্তার আটক করে আমাকে খবর দিলে ঘটনাস্থলে আসি। এবিষয়ে ডাক্তার হাসনাতের নুন্যতম কোন অভিজ্ঞতা বা প্রাতিষ্ঠানিক সনদ নেই। এরা গ্রামে ঘুরেঘুরে পশু মালিকদের বিভিন্ন ধরনের মিথ্যা কথা বলে চিকিৎসা সেবা দিয়ে অর্থ হাতিয়ে নেয়।

তিনি আরও বলেন, ক্ষতিগ্রস্থ পশু মালিক মঞ্জু মিয়াকে ক্ষতিপূরন বাবদ ৫০ হাজার টাকা দিবে হাসনাত। ভুয়া পশু ডাক্তার হাসনাতও গরীব মানুষ তার বিষয়ও দেখতে হবে সে টাকা দেওয়ার মত সামর্থ আছে কি না। সেদিক বিবেচনা করে আমরা ৫০ হাজার টাকার বিনিময়ে সমাধান করে দিয়েছি। সে যদি টাকা না দিতে পারে পশু ডাক্তারের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Like us on Facebook