বৃহঃ. আগ ১৩, ২০২০

দৈনিক আজকের বাংলাদেশ

সত্য প্রকাশে আপোষহীণ…

বন্দর হালুয়াপাড়া সন্ত্রাসী হামলায় শিক্ষক দম্পতি আহত- থানায় অভিযোগ

বন্দর প্রতিনিধি:- নারায়ণগঞ্জ বন্দর উপজেলার হালুয়াপাড়া এলাকায় শিক্ষক পরিবারের উপর অতর্কিত সন্ত্রাসী হামলা। শিক্ষক পরিবার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন, থানায় অভিযোগ। থানা অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, হালুয়াপাড়া এলাকার মৃত মজিদ মিয়ার ছেলে মালিবাগ কেরামতিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের সিনিয়র শিক্ষক মো: এবায়েদ উল্লাহ (৪৮) ও তাহার স্ত্রী শেখ জামাল উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শামীমা আক্তার মুন্নী (৪২) পুত্র ছামছুল হক খান উচ্চ বিদ্যালয়ের ৮ম শ্রেনীর ছাত্র সিয়ামের (১৩) উপড় সন্ত্রাসীরা হত্যার উদ্দেশ্যে এলোপাতাড়ি হামলা করে। হামলায় শিক্ষক দম্পতি ও তাদের সন্তান রক্তাক্ত জখম হয়ে বিভিন্ন হাসপাতালে উন্নত চিকিৎসা নিচ্ছে। এ ব্যাপারে এবায়েদ উল্লাহ মাষ্টার নিজে বাদী হয়ে গত ১০/০৬/২০১৯ ইং তারিখ বন্দর থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করে। অভিযোগে পারিবারিক বিষয়কে কেন্দ্র করিয়া বিবাদী (১) মো: আজিজুল্লাহ (৪৫), (২) মো: করিমুল্লাহ (৪২) উভয় পিতা মৃত আ: মজিদ (৩) মোসা: লাকি বেগম (৪৪) স্বামী মো: আজিজুল্লাহ (৪) চম্পা বেগম (৪০) স্বামি করিমুল্লাহ (৫) মোসা: তানাশা (১৬) পিতা আজিজুল্লাহ সহ অজ্ঞাতনামা তিন চার জন সংঘবদ্ধ হয়ে গত ১০/০৬/১৯ ইং তারিখ রাত আনুমানিক ৮.০০ ঘটিকার সময় বাদীর বসত বাড়িতে প্রবেশ করিয়া দরজা ও জানালার গ্লাস ভাংচুর করিয়া প্রায় পাঁচ হাজার টাকা ক্ষতি সাধন করে। এ বিষয়ে বাদী ও তাহার স্ত্রী একই রাত ৮.৩০ ঘটিকার সময় পাশের এলাকায় বাড়ি অবস্থিত স্থানীয় চেয়ারম্যান মাসুমকে বিষয়টি অবহিত করার জন্য বাসা হইতে বাহির হয়। ঘর হতে বের হওয়ার সাথে সাথে উল্লেখিত বিবাদীগন দেশীয় তৈরী দা, বটি, হকিস্টিক ও লাঠিসোঠায় সজ্জিত হয়ে স্ত্রী শামীমা আক্তার মুন্নীর পথরোধ করে । তাকে এলোপাতারিভাবে মারপিট করিয়া শরীরের বিভিন্ন স্থানে নীলা ফুলা জখম করে। ১ নং বিবাদী আজিজুল্লাহ বাদী এবায়েদ উল্লাহকে হত্যার উদ্দেশ্য উপর থেকে ফেলে বুকে পারা দিয়ে গলা চাপিয়া হত্যার চেষ্টা করে। এদিকে তিন নং বিবাদী মোসা: লাকি তাহার হাতে থাকা ধারালো বটি দিয়া হত্যা করতে বাদীর গলায় কোপ মারিলে স্ত্রী শামীমা আক্তার মুন্নী তাহার ডান হাত দিয়ে প্রতিহত করে। ফলে স্ত্রীর ডান হাত সামান্য জখম হয়ে রক্ত বের হয়। এ সময় শিক্ষক দম্পতি মাটিতে লুটিয়ে পড়ে থাকা অবস্থায় তিন নং বিবাদী লাকী শিক্ষিকা শামিমার ভ্যানিটি ব্যাগ জোড় পূর্বক ছিনিয়ে নেয়। ব্যাগের ভিতরে থাকা নগদ দশ হাজার টাকা সহ দুইটি মোবাইল সেটা যাহার মূল্য আনুমানিক পয়ত্রিশ হাজার টাকা। এছাড়া চার নং বিবাদী চম্পা স্ত্রী শামীমার গলায় থাকা আট আনা ওজনের স্বর্নের চেইন যাহার মূল্য আনুমানিক পচিঁশ হাজার টাকা ছিনিয়ে নেয়। বিবাদীগনের অতর্কিত হামলায় শিক্ষক দম্পতি ডাক চিৎকার করিতে থাকিলে তাহাদের তেরো বছরের সন্তান ছামছুল হক স্কুলের ৮ম শ্রেনীর ছাত্র সিয়াম ঘর থেকে বের হয়ে আসে। তাকে ও বিবাদীগন এলোপাতারীভাবে পিটাইয়া নিলাফোলা জখম করে। পরে তাদের ডাক চিৎকারে আশেপাশের লোকজন আগাইয়া আসিলে শিক্ষক দম্পতিকে খুন গুম করিয়া ফেলিবে বলিয়া বিভিন্ন ভয়ভীতি সহ হুমকি দিয়ে চলিয়া যায়। বিবাদীগন এলাকায় উৎশৃঙ্খল ও ধাঙ্গাবাজ বলিয়া পরিচিত। তাদের ভয়ে আসেপাশের লোকজন মুখ খুলতে সাহস পায়না। এ অবস্থায় নিরিহ শিক্ষক পরিবার আতংকিত। ফলে তাদের অত্যাচারে প্রানের ভয়ে বাড়ি ছেড়ে জীবন বাচাঁতে চাইছে ভোক্তভোগী শিক্ষক পরিবার। এ অবস্থায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সহ প্রশাসনের উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের নিকট সুবিচার কামনা করছে অসহায় শিক্ষক পরিবার। তবে কে বা কার ইন্ধনে সন্ত্রাসীরা এভাবে শিক্ষক দম্পতির উপর হামলা চালিয়েছে তা এলাকাবাসীর মনে নানা কৌতুহল জাগছে। নাম প্রকাশ না করার শর্তে অনেকেই জানান এলাকার ক্ষমতাসীন রাজনৈতিক এক ব্যক্তির ইশারায় শেখ জামাল উচ্চ বিদ্যালয়ের হিসাব নিকাশ সংক্রান্ত বিষয়ে সন্ত্রাসীরা এভাবে শিক্ষক দম্পতির উপর একের পর এক হামলা চালিয়ে যাচ্ছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Like us on Facebook