শনি. নভে ২৮, ২০২০

দৈনিক আজকের বাংলাদেশ

সত্য প্রকাশে আপোষহীণ…

মাদক ব্যবসায়ীদের সেল্টারদাতা শাহাজালালের অপকর্মে অতিষ্ঠ এলাকাবাসী

আজকের বাংলাদেশ রিপোর্ট :-

কখনো গাড়ীর ড্রাইভার কখনো রাজনীতিবিদ কখনো অসহায় হয়ে মানুষের কাছ থেকে সাহায্য তুলে নেয়া ফকির কখনোবা জামায়াত শিবিরের ক্যাডার হয়ে অসহায় মানুষের উপর হামলাকারী সন্ত্রাসী কখনো আবার সাংবাদিক পরিচয় দিয়ে মাদক ব্যবসায়ীদের সেল্টারদাতা শাহাজালালের অপকর্মে অতিষ্ঠ সোনারগাঁবাসী।
কে এই শাহাজালাল? সোনারগাঁও উপজেলার পিরোজপুর ইউনিয়নের পিরোজপুর চেঙ্গাকান্দী এলাকার দিন মজুর আলম চানের ছেলে শাহাজালাল।

এলাকাবাসী ও সোনারগাঁও থানা সূত্রে পাওয়া খবর অনুযায়ী,সে একজন বিএনপি জামাতের সক্রিয় সদস্য। বিএনপির চার দলীয় জোট সরকার ক্ষমতায় থাকা কালীন সময়ে সে নিজ এলাকায় তার নেতৃত্বে সন্ত্রাসী বাহিনী গড়ে তুলে। এসময় মাদক ব্যবসা, জমি দখল ও বিভিন্ন শিল্প প্রতিষ্ঠানে চাঁদাবাজি করে সে জীবিকা নির্বাহ করতো এবং এই অবৈধ টাকা দিয়ে সে কয়েকটি গাড়ী ক্রয় করে।
পরবর্তীতে বিএনপি সরকারের পতনের পর নিজ এলাকা থেকে পালিয়ে দীর্ঘ দিন আত্মগোপনে থেকে পুনরায় নিজ এলাকায় ফিরে ড্রাইভারের কাজ করে সাংবাদিকের কার্ড নিয়ে মাদক ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে মাসোহারা নিয়ে জীবিকা নির্বাহ করতে থাকে।
সে নিজেকে সাংবাদিক পরিচয় দিয়ে সোনারগাঁও থানার সকল পুলিশ সদস্যদের মিথ্যা নিউজের ভয় দেখিয়ে কখনো আবার নিজেকে অসহায় বলে টাকা আদায় করতে থাকে। বিগত জাতীয় নির্বাচনে বর্তমান সরকারের বিরোধিতা করে বিএনপি জোট সরকারের একটি দলের প্রার্থী হিসেবে সংসদ নির্বাচন করতে গিয়ে এলাকাবাসীর হাতে লাঞ্ছিত হয়। পরবর্তীতে সর্বশেষ উপজেলা নির্বাচনে ভাইস চেয়ারম্যান পদে জামায়াত নেতা মাওলানা ইকবালের কাছ থেকে মোটা অংকের টাকা নিয়ে নির্বাচন করে আবারও বিতারিত হয়। শাহাজালাল স্থানীয় চিহ্নিত মাদক কারবারি আব্দুর রব বা মুরগী রবের কাছ থেকে মোটা অংকের মাসোহারা নিয়ে থাকে বলে রবের বিরুদ্ধে কোন সংবাদকর্মী সংবাদ প্রকাশ করলে তাকে হামলা মামলা দিয়ে হয়রানি করার চেস্টা করে। শাহাজালাল সাংবাদিকতার পরিচয় দিয়ে তার চাচাতো ভাইদের সম্পত্তি জোর পূর্বক দখল করে রেখেছে বলেও অভিযোগ করে এলাকাবাসী। শাহাজালাল একজন বিস্ফোরক মামলার এজাহার ভুক্ত আসামী।তার বিরুদ্ধে সোনারগাঁও থানা সহ বিভিন্ন থানায় একাধিক মামলা রয়েছে বলে জানায় সোনারগাঁও থানা পুলিশ।

এ বিষয়ে স্থানীয় পিরোজপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব ইঞ্জিনিয়ার মাসুদুর রহমান মাসুম বলেন, আমার জানামতে সে জামায়াত শিবিরের রাজনীতির সাথে জড়িত। সে আমাকে না জানিয়েই তার অনলাইন পত্রিকায় আমাকে উপদেষ্টা রেখেছে। তার বিরুদ্ধে এলাকাবাসীর বিভিন্ন অভিযোগ রয়েছে। সোনারগাঁও রিপোর্টার্স ক্লাবের সভাপতি দৈনিক ভোরের কাগজ,মানবকন্ঠ ও ৭১টিভির প্রতিনিধি ছাত্তার প্রধান বলেন, শাহাজালাল তার অপকর্ম ঢাকার জন্য আমাকে কিছু না জানিয়ে তার পত্রিকায় উপদেষ্টা রেখেছে। আমার জানামতে সে একজন জামায়াত শিবিরের সক্রিয় কর্মী। তার সাথে কিছু নামধারী অখ্যাত পত্রিকার সাংবাদিক একত্রিত হয়ে মাদক কারবারিদের কাছ থেকে মাসোহারা নিয়ে বিভিন্ন অপকর্মে লিপ্ত আছে।

এ বিষয়ে স্থানীয় সংসদ সদস্য লিয়াকত হোসেন খোকা জানান, আমার সাথে কথা না বলেই সে আমাকে তার অনলাইন পত্রিকায় প্রধান উপদেষ্টা রেখেছে যা একটি বড় ধরণের অপরাধ। আমিও শুনেছি সে একজন জামায়াতের লোক হয়ে আওয়ামীলীগের নেতাদের সাথে মিলে সাংবাদিকের পরিচয় দিয়ে এসব কূকর্ম করে যাচ্ছে।
শাহাজালালের অপকর্মের বিষয়ে সোনারগাঁও থানার অফিসার ইনচার্জ মনিরুজ্জামান বলেন , আমাদের কাছে তথ্য আছে সে একজন জামায়াত শিবিরের নেতা। সে প্রায়ই সময় আমার থানার পুলিশদের নিয়ে মিথ্যা সংবাদ প্রচার করে হয়রানি করে। তার বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ পেয়েছি তাকে গ্রেফতারের চেষ্টা অব্যাহত আছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Like us on Facebook