সেপ্টেম্বর ১৮, ২০২১

দৈনিক আজকের বাংলাদেশ

সত্য প্রকাশে আপোষহীণ…

বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রী’র ছবিসহ ব্যানার ভাংচুরের ঘটনা ভিন্ন দিকে নিতেই খান মাসুদের বিরুদ্ধে জিডি

আজকের বাংলাদেশ রিপোর্টঃ-

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছবি সম্বলিত ব্যানার ভেকু দিয়ে ভাংচুরের ঘটনা ভিন্ন দিকে নিতেই যুবলীগ নেতা খান মাসুদের বিরুদ্ধে থানায় জিডি।

প্রসঙ্গতঃ সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ী ৪ সেপ্টেম্বর সকাল থেকেই শীতলক্ষ্যা নদীর তীরে বিভিন্ন স্থানে বিআইডব্লিউটিএ’র উপ-পরিচালক মাসুদ কামালের নেতৃত্বে নদীর পাড়ে উচ্ছেদ অভিযান চালানো হয়। অভিযানের এক পর্যায়ে বন্দর ১নং খেয়াঘাট সংলগ্ন নদীর পাড়ে বন্দর থানা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক খান মাসুদের একটি ব্যানার যার মধ্যে বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রীসহ নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য একেএম শামীম ওসমান ও নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের সংসদ সদস্য বীরমুক্তিযোদ্ধা একেএম সেলিম ওসমান ও বন্দর উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি বীরমুক্তিযোদ্ধা এম এ রশীদের ছবি সম্বলিত সেটি ভেকু দিয়ে ভাঙ্গার চেষ্টা করে। এ সময় উপস্থিত আওয়ামীলীগের বিভিন্ন স্তরের নেতৃবৃন্দ বার বার অনুরোধের পরও বিআইডব্লিউটিএ’র কর্মকর্তা মাসুদ কামাল নেতা-কর্মীদের বাধা উপেক্ষা করে তা ভেঙ্গে গুঁড়িয়ে দেন। বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রী’র সম্বলিত ব্যানার এভাবে ভেকু দিয়ে খুচিয়ে খুচিয়ে ভাংচুর করায় জেলা, মহানগর ও বন্দর থানাসহ বিভিন্ন ইউনিয়নের নেতা কর্মীরা তীব্র নিন্দা ও ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। এবং এ ঘটনায় নারায়ণগঞ্জ বিআইডব্লিউটিএ’র পরিচালক মাসুদ কামালের অপসারণের দাবিতে বন্দরে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল করেছে স্থানীয় আওয়ামীলীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগের নেতৃবৃন্দ। এমন ন্যাক্কারজনক ঘটনায় নারায়ণগঞ্জ জেলা, মহানগর ও বন্দর থানার শীর্ষ নেতাদের প্রতিবাদের ঝড় উঠেছে ঠিক তখনই বিআইডব্লিউটিএ’র পক্ষ থেকে যুবলীগ নেতা খান মাসুদের বিরুদ্ধে বন্দর থানায় জিডি দায়ের।

এমন ঘটনায় চরম ক্ষোভ প্রকাশ করেছে বন্দরের আ’লীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা।

ক্ষোভ প্রকাশ করে তারা জানান, সম্প্রতি বন্দরে সেন্ট্রাল খেয়াঘাটে নদীরপাড়ে বিআইডব্লিউটিএ’র উচ্ছেদ অভিযানের নামে জাতির পিতা শেখ মুজিব,প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা,নারায়ণগঞ্জের দুই এমপি সেলিম ওসমান ও শামীম ওসমানের ছবি সম্বলিত ব্যানারগুলো খুচিয়ে খুচিয়ে ছিড়ে অপসারন করা হয়েছে। যা খুবই বেদনা দায়ক। আমরা এমন ন্যক্কার জনক ঘটনার তীব্র নিন্দা জানাই। পাশাপাশি বলতে চাই উচ্ছেদ অভিযানের সময় ব্যানারগুলো অপসারন করে নেয়ার জন্য সময় চাওয়া হয়েছিল। কিন্তু তারা তাদের হীন উদ্দেশ্য চরিতার্থ করার জন্য এমন নির্মমভাবে ব্যানার-ফেস্টুনগুলো ছিড়ে ফেলেছে। মনে হয়েছিল কোন রাগের-ক্ষোভের বর্হিপ্রকাশ ঘটিয়েছে তারা ব্যানারগুলো ধ্বংস করার মাধ্যমে। প্রকৃত দেশপ্রেম যার মধ্যে থাকবে সে কখনো এমনভাবে এই কাজগুলো করতে পারবে না। তারমধ্যে তারা সরকারী প্রজাতন্ত্রেও কর্মচারী হয়ে কিভাবে সরকার প্রধানের ছবি এভাবে ছিড়ে টুকরো টুকরো করতে পারে তা আমাদের বোধগম্য নয়। এরমধ্যে আবার আ’লীগের একনিষ্ট কর্মী বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সৈনিক যুবলীগ নেতা খান মাসুদ প্রতিবাদ করাতে তার বিরোদ্ধে বন্দর থানায় জিডি হল। আসলে খান মাসুদ একজন পরিক্ষিত ত্যাগী নেতা তাই বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রীর ছবি সম্বলিত ব্যানার ছিড়ে ফেলায় আবেগ ধরে রাখতে পারে নাই। সেই এমন ন্যাক্কারজনক উচ্ছেদের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছিল। আর এটাই কাল হয়ে দাড়ালো। তার বিরোদ্ধে জিডি হল। খান মাসুদের বিরোদ্ধে সব সময় একটি মহল ষড়যন্ত্রে লিপ্ত ছিল এখনো আছে। হাজারো কুটকৌশলে কখনো ত্যাগী নেতারা পিছু হটেনা। দলের জন্য নিবেদিত হয়ে কাজ করে যায়। খান মাসুদের বিরোদ্ধে সকল অপপ্রচারে তীব্র নিন্দা জানাই।

এ বিষয়ে খান মাসুদ বলেন, আসলে সরকারী কাজে আমরা সব সময় সমর্থণ করে থাকি। এটা তাদের নীতিমালা অনুযায়ী করবে এটাই স্বাভাবিক তবে দেখে দেখে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান,বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও নারায়ণগঞ্জের গনমানুষের নেতা সাংসদ একেএম শামীম ওসমান এবং সাংসদ বীরমুক্তিযোদ্ধা সেলিম ওসমান এবং বন্দর উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা এম রশিদ সম্বলিত ছবিগুলো উচ্ছেদ অভিযানের নামে টুকরো টুকরো করে ধ্বংস করা স্বাধীনতা পক্ষের কোন মানুষের কাজ হতে পারে না। বঙ্গবন্ধু মানেই স্বাধীনতার আরেক নাম। তাদের ছবিসহ ব্যানারগুলো অপসারনের জন্য একটু সময় দিলেই আমরা নামিয়ে ফেলতাম। বঙ্গবন্ধুর ছবি এভাবে ভেকু দিয়ে খুচিয়ে খুচিয়ে ভাংচুর করায় আমাদের মনের মধ্যে রক্তক্ষরণ হয়েছে তাই আমরা এর প্রতিবাদ জানিয়েছি। আর প্রতিবাদ করায় আমার বিরুদ্ধে থানায় জিডি করা হয়েছে। যা আমি কখনোই ভীত নই। যত জীবন বেচে থাকব ততদিন অন্যায়ের কাছে কখনো মাথা নত করবনা ইনশাআল্লাহ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Like us on Facebook