শনি. সেপ্টে ২৬, ২০২০

দৈনিক আজকের বাংলাদেশ

সত্য প্রকাশে আপোষহীণ…

মেয়র আইভির প্রভাব খাটিয়ে ভগ্নীপতি’র ব্যবসা প্রতিষ্ঠান দখলের অভিযোগ !

আজকের বাংলাদেশ ডেস্ক:-

নারায়ণগঞ্জ নিতাইগঞ্জে মেয়র সেলিনা হায়াৎ আইভির প্রভাব খাটিয়ে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান দখলের অভিযোগ নারায়ণগঞ্জ জেলা যুবলীগের সভাপতি আব্দুল কাদিরের বিরুদ্ধে।

মঙ্গলবার (২৮ এপ্রিল) সকাল ৮ টায় নিতাইগঞ্জের আর, কে দাস রোড, ১৪/১৫, আজমীর ট্রেডিং এর সামনে ঘটনাটি ঘটে।

এ বিষয়ে আজমীর ট্রেডিংয়ের মালিক আব্দুর রহমান বলেন, আমি ২০০৪ সালে ১২ লাখ টাকার বিনিময়ে পজিশন খরিদ করি। এবং সেটা জুডিশিয়াল স্টাম্পের মাধ্যমে তার কাছ থেকে দলিল করি। এবং সে আমার কাছথেকে নিয়মিত ভাড়া গ্রহণ করে। শুধু তাই নয় সে আমার থেকে ভাড়ার টাকা এডভান্স নিয়ে যেতো। সে দীর্ঘদিন আমার থেকে ভাড়া নেওয়ার পরেও লোভের বসবত হইয়া, হঠাৎ ২০১২ সালে আমার দোকানের ভাড়া নেওয়া বন্ধ করে দেয়। পরে আমি আইনের আশ্রয় নেই। তাপর থেকে আমার দোকানের ভাড়ার টাকা নিয়মিত আদালতের মামলার নিয়ম অনুযায়ী আইনিভাবে পরিশোধ করে থাকি। সে আমাদের দোকানের ডিট অনুযায়ী একটি মামলা দায়ের করে আদালতে।

পরবর্তীতে আমিও তার বিরুদ্ধে আরেকটি মামলা দায়ের করি। সেই মামলায় আদালত আমার পক্ষে তিনটি রায় দেয়। মামলাটি উচ্চ আদালত হাইকোর্টে চলমান রয়েছে। সে হাইকোর্ট বাইলট করে আদালতকে বিদ্ধাআগুল দেখিয়ে সে বিভিন্ন সময় হুমকি-ধমকি জবরদখল করার চেষ্টা অব্যাহত রাখে। এবং তার দোকানের মালামাল নিয়ে আমার দোকানের সামনে অবৈধভাবে দখল করে। তারপর আজকে যা ঘটছে সেটি হচ্ছে আমার দোকানের ম্যানেজার দোকান খুলতে গেলে তাকে বাধা দেয়। পরবর্তীতে ম্যানেজারকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ এবং দোকানের মালামাল ঢুকতে দেওয়া হবে না বলেও তিনি জানান।
এমতঅবস্থায় আমার দোকানের ম্যানেজার তার কথার প্রতিবাদ জানালে তিনি বিভিন্ন ধরনের সন্ত্রাসী বাহিনীর মাধ্যমে হুমকি প্রদান করে ম্যানেজারকে। তিনি নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের মেয়র সেলিনা হায়াৎ আইভীর বোনজামাই ও নারায়ণগঞ্জ জেলা যুবলীগ সভাপতি হওয়ার সুবাদে দলীয় প্রভাব খাটিয়ে প্রতিনিয়ত অবৈধভাবে দোকান জোরপূর্বক দখল করার চেষ্টা করছেন।
তিনি আরও বলেন, আর একটি কথা না বললেই নয় , ২০০৪ সালে যখন আমার কাছে দোকানের পজিশন বিক্রি করেন। তখন আমাদের পাশের দোকান টি মোহাম্মদ শাজাহান মিযয়ার কাছেও বিক্রি করেন। পরবর্তীতে শাহজাহান মিয়াকে তার সন্ত্রাসী বাহিনীর মাধ্যমে ভয়-ভীতি দেখিয়ে সেই দোকানটাও শাজাহান মিয়ার কাছ থেকে ছিনিয়ে নেয় আব্দুল কাদির। এমতঅবস্থায় তিনি তার সেই কৌশল ব্যবহার করে আমার দোকানটাও জোরপূর্বক ছিনিয়ে নেয়ার পাঁয়তারা চালাচ্ছেন।
এ বিষয়ে আমি বার-বার থানায় অভিযোগ করেছি এবং ব্যবসায়ী মহলে নেতৃবৃন্দকে জানানোর পরেও তিনি তোয়াক্কা না করেই তিনি অবৈধভাবে দোকান দখলের পায়তারা লিপ্ত আছেন।
এ বিষয়ে আজমীর ট্রেডিংয়ের সামনে মালামাল রাখা নিয়ে জানতে চাইলে সেখানে অবস্থানরত আব্দুল কাদিরের কর্মচারী মোঃ শাহিন সংবাদকর্মীকে জানান, তার মালিক আব্দুল কদিরের অর্ডার নিয়েই এখানে মালামাল রাখা হয়েছে। অবৈধভাবে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান দখলের বিষয় জানতে চাইলে সংবাদকর্মীকে আব্দুল কাদির বলেন, আমার জায়গাতেই আমি মালামাল রেখেছি। আমি তারকাছে টাকা পাবো। তিনি তার ক্ষমতার অপব্যবহার করে তিনি সংবাদকর্মীর কথা এড়িয়ে যান। উল্লেখ্য, পজিশনের সামনে জায়গা পজিশন মালিক ব্যবহার করার নিয়ম থাকলেও আব্দুল কাদির তা অমাণ্য করে অন্যের দোকানের সামনে অবৈধভাবে দখলবাজী চালিয়ে যাচ্ছেন। তিনি কারও কথায় তোয়াক্কা করছেন না।

সূত্র : জাগো নারায়ণগঞ্জ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Like us on Facebook